আতঙ্কিত হবার কারণ নেই — সত্যেন্দ্রনাথ পাইন

banglanewspage.com
করোনা করোনা করোনা। করোনা নিয়ে যেন ছেলেখেলা চলছে। কে কত বেশি বেশি প্রচার মাধ্যমকে
হাতিয়ার করে প্রচার করতে পারে তারই প্রতিযোগিতা যেন।” আমি যে কম যাই না” — এটাই দেখানো।
আমজনতার কী হবে তাতে?

শিশুকে থামাতে না পেরে মায়েরা যেমন পুতুল, কিংবা অন্যকিছু দিয়ে ভুলিয়ে একটা নির্দিষ্ট জায়গায় বন্দী রেখে নিজের কাজ হাসিল করতে চায়— এ- ও সেই প্রকার পুতুল দিয়ে আমজনতাকে শিশু সুলভ এক জায়গায় গৃহবন্দি রাখার অদম্য উন্মত্ততা যেন।
তাতেও যখন শিশুটি বিরক্তিকরে ( মায়ের মতে) তখন অন্য খেলা দিয়ে নচেৎ অন্য কোনো একটু বড় কাউকে শিশুটিকে সামলানোর দায়িত্ব দিয়ে নিষ্কৃতি পেতে চায় মা । এ- ও সেইরকম একটা কিছুই মনে হয়।
বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা(who) মহামারী ঘোষণা করার পর সরকার পক্ষ( কেন্দ্র বা রাজ্য) প্রতিযোগিতায় নেমেছে। স্কুল কলেজ সিনেমা,হল, শপিং মল তীর্থস্থান সবখানেই তালা দিতে বলেছে।যাতে করে জমায়েত ঠেকানো যায়। কৈ ভিড় বাস ট্রেন ব্যাংক কে বন্ধ করা হচ্ছে না কেন? ওখানে কি ভিড় হয় না? আসল খেলা তো অন্য।
করোনা ভাইরাস নিঃসন্দেহে মহামারী। কিন্তু এত আতঙ্কিত হবার কোনো কারণ তো নেই।
প্লেগ কলেরা গুটিবসন্ত প্রভৃতি রোগের উৎপাত এখানে হয়েছে। তার থেকে এখন আমরা মুক্ত। আমরা তবে কী কারণে এত গৃহবন্দি হয়ে চাইছি???? অন্য কোনো গুপ্ত অভিসন্ধি নেই তো? ……

মহাভারতে নাকি উল্লেখ আছে কলির শেষভাগে ভারত শাসন করবে পীত বর্ণের বেঁটে মানুষেরা। মনে হয় বর্তমানে চীন দেশের কথাই বলা হয়েছে। তারা আজ ভারতীয় অর্থনীতির ও ভাগ্যনিয়ন্তা। তারাই এই ভাইরাস সৃষ্টি করে বাজারে ছেড়েছে নিজেদের স্বার্থ সিদ্ধির আশায় আবার তারাই নাকি এ্যান্টি ভাইরাস কে ও ছাড়বে। সেটা বোধহয় ঐ ১৪/১৫ এপ্রিল নাগাদ। আমরা তবে কী কারণে এত উতলা হচ্ছি?
ভাগাড়ের মাংস খেয়ে আমরা তো দিব্যি আছি। চৈতন্য মহাপ্রভুর প্রচারিত হরিনাম সংকীর্তনে বেলেল্লাপনা নাচ ও অশ্লীল সুরারোপেও আমরা ভালো আছি।— দিব্যি চিড়ে ভোগ খাচ্ছি। যেকোনো কীটনাশক বা নাইট্রিক এসিড আমাদের তেমন ক্ষতি করতে পারেনি। গতবছরের বার্ড ফ্লু, তার আগে আয়লা সব সব সয়ে গেছে। আমরা যেন সর্বংসহা!
গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ কে নিয়ে যথেষ্ট গালমন্দ করেছি এবং এখনও করছি। এককথায়” নোবেল” পুরষ্কার টা চুরি করে আদ্য শ্রাদ্ধ করেছি। বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের বন্দে মাতরম শব্দটা আর তেমন যেন মনে ধরে না । বিদ্যাসাগর মহাশয়ের মূর্তি টাকে উপড়ে ফেললাম।
শিক্ষাকে ডকে তুলে অশিক্ষাকে আরো শক্তিশালী করতে পেরেছি। বড় বড় রাজনৈতিক দাদার জন্ম হয়েছে তাতে। খুন খারাবি ডাকাতি অসংলগ্ন কথাবার্তার জন্ম দিয়েছি। প্রকৃত শিক্ষিত দের অপমান করে পা্য়ে ঠেলে দূরে ফেলে দিতে পেরেছি।

” করোনা” তো পুতুল সমান আমাদের কাছে । কোনো আতঙ্কিত হবার তাই প্রয়োজন আছে কি?


হায়রে! বোকা সরল শিশু আমজনতা!!

ফেসবুক মন্তব্য

Published by Story And Article

Word Finder

Leave a Reply

%d bloggers like this: