এক মুঠো ভাত দে : মৈত্রেয়ী সিনহা রায়

এখনো রাত্রির কালো হয়নি শেষ,
আকাশের গায়ে শেষ ভালোবাসাটুকু
বুলিয়ে দিচ্ছে নক্ষত্ররা,
রেশনে তো আর কাপড় পাওয়া যায়না
তাই রাতের অন্ধকারে ওই শতচ্ছিন্নএকখানি কাপড়কে কেচে
আবার জড়িয়ে নেয় আদুরী,
এখনই জ‍্যোৎস্না ঠেলে উদিত হবে
উত্তাল লাল সূর্য,
ভালোবাসার সুকুমার কলিগুলো
আড়মোড়া ভেঙে উঠে
আদর বুলিয়ে দিচ্ছে অভুক্ত
ছেলেমেয়েদের ক্ষিদেয় কুঁকড়ে
যা‌‌ওয়া মুখগুলোর ওপর,
দুচোখের কুয়াশায় ঝাপসা হয়ে যায়
একফালি জ‍্যোৎস্না,
বুকের তালে তালে ডুকরে ডুকরে ওঠে
ওদের কান্নার শব্দগুলো,
কষ্টের মূহুর্ত গুলো প্রতিধ্বনিত হয়ে
ছড়িয়ে পড়ে নিঃস্তব্ধ ভোরের আঙিনায়।

তোমাদের যাদের দিন এগিয়ে যায়
অন্নচিন্তার ভাবনা না রেখেই
তাদের কেমন করে বোঝাব
মূঢ় মাতৃত্বের অক্ষম মমতা,
কেমন করে বোঝাব
ক্ষিদেয় মুচড়ে যাওয়া শরীরের
ডানাঝাপটানি।

ও কি হেঁকে যায় ছিন্নবসনা নারী?
‘মাসী কি আছে তোমার ঝুলিতে?
ধারে যদি পেতাম দু-একটি তার‌ই’,
চি‌ৎকার কানে ভেসে আসে
‘আছে আছে তোমার যা দরকারি
যুদ্ধ আছে, সেনা আছে,লাদাখ আছে
আছে মেক ইন ইন্ডিয়া, জাতীয়তাবাদ,
আত্মনির্ভরতা,কূটনৈতিক-সামরিক
কৌশল, মেরা ভারত মহান,পণ্য বয়কট,
আছে সিয়াচেন থেকে গাওওয়ান উপত্যকা ঘিরে রাষ্ট্রনেতাদের আবেগ…..’
দু’হাত শূন্যে তুলে চিৎকার করে আদুরী
‘থাম থাম আবাগীর বেটি
একমুঠো ভাত দে হারামজাদি’।

ফেসবুক মন্তব্য

Published by Story And Article

Word Finder

Leave a Reply

%d bloggers like this: