ঘুণ — শ্যামল কুমার রায়

banglanewspage.com



নিস্তব্ধ পৃথিবী! 
নিকষ কালো অন্ধকার , 
একফালি বাঁকা চাঁদ – 
ওরই মাঝে পথ দেখায় ।
শব্দের মিছিল সব থেমে গেছে , 
পেটের দায়ে ভোর থেকে ছোটাছুটি করা – 
মানুষ সব শয্যা নিয়েছে। 
সারাদিনের ক্লান্তিতে সব নিঃশেষ, 
পান্তায় পেট ভরিয়ে চলে গেছে ঘুমের দেশ ।
মশা , মাছির উৎপাত –
ঘটায় না ওদের ঘুমে ব্যাঘাত ।
রাজৈশ্বর্যের জন্যে ওরা নয় বিচলিত – 
দু’বেলা দুমুঠো গরম ভাতে ওরা খুব সন্তুষ্ট ।
মধ্যরাতে পালঙ্কে , কনকনে শীতে তুমি একা – 
অমলিন মানসপটে আজও তোমার ছবি আঁকা ।
বাহিরে ঝিঝির ডাক,ভেতরে ঘুণপোকার কটকট,
শূন্যতা নেমে আসে চোখে ।
বাহিরে নিশ্চয়যান , 
সব শুনশান, 
গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন গ্রামীণ হাসপাতাল , 
ঘুম ঘুম চোখ, 
কর্তব্যরত চিকিৎসক , 
দরজায় ঠকঠক, 
খোলে না ফটক ।
অসহায় চোখ একা জেগে রয় –
ঘুমহীন চোখে তারার পানে চায় ।
ছোট্ট শিশু তখন ঘুমের মধ্যে পরীর দেশে।
নিশি ভোরে বাঁকা চাঁদ ফিকে হয়ে আসে,
 পূব আকাশে রবি মামা মুচকি হাসে ।
দুশ্চিন্তা শেষ,  দূর হতে কানে আসে শব্দের রেশ।
ফেসবুক মন্তব্য

Published by Story And Article

Word Finder

Leave a Reply

%d bloggers like this: