চাওয়া গুলো পাওয়া হয় না,কিন্তু কথা বলে যায় – দেবব্রত মল্লিক

চাওয়া গুলো পাওয়া হয় না,কিন্তু কথা বলে যায়     -  দেবব্রত মল্লিক

দিন আসে দিন যায় তোমার আশায়,দিন গোনে আমার মন স্বপ্নের দিন এই জীবনে আসবে কখন…..” হেডফোন গান বাজছে।ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করে ছোট্ট একটা চাকরি জুটিয়েছি।সস্তার একটা ফ্ল্যাট ভাড়া পেয়েছি।

একাই থাকি ।মাঝে মাঝে বাড়ি যাই।কিন্তু এবার তিন মাস হতে গেল এখনও একবারও বাড়ি যাওয়া হয়নি। অফিস যাই ,আসি ,মাঝে মাঝে রেস্টুরেন্টে গিয়ে ভালো মন্দ গিলে আসি,নেশাও বেশ ধরেছি,দিব্যি আছি। ঝিরঝিরে বৃষ্টি হচ্ছে বাইরে।ঠক ঠক..’, হটাৎ দরজায় নক ।নেপাল এলো বোধ হয় খাবার দিতে।দরজা খুলেই থত মত খেয়ে দাঁড়িয়ে রইলাম। একি ঈশা…!,আমার ex crush

পাঁচ বছর আগে ফার্স্ট ইয়ার পড়তে Facebook দেখে crush খেয়েছিলাম। অপূর্ব লাগছে ওকে।বিয়ে হয়ে গেছে ওর। কোলে একটি মাসের ফুটফুটে বাচ্ছা।ভালো আছো?” – জিগ্যেস করলো অস্ফূট স্বরে উত্তর দিলাম, ” হুম্ ঘরে ঢুকে বাচ্ছা টাকে খাটে শুইয়ে দিল খাটের পাশে রাখা তোয়ালে টা দিয়ে ঢাকা দিল বাচ্ছা টাকে ।কি বলবো কিছুই বুঝতে পারছি না।শুধু কাবল্যার মত দাঁড়িয়ে আছি।


হালকা ভিজে গেছিলো ঈশা। দড়িতে টানানো গামছাটা দিয়ে গা মুছতে মুছতে বললো,” তোমাকে সারপ্রাইজ দেবো বলে কিছু বলিনিকি সারপ্রাইজ?” – জিগ্যেস করলাম।তুমি বাবা হয়েছ,দেখ তোমার মতই দেখতে হয়েছে “- হাসতে হাসতে বললো ও। পা নু দেখতে গিয়ে ধরা খেলে যেমন টা শক লাগে ঠিক তেমন টাই শক পেলাম।মাথা এতটাই ঘুরছে যে নিজেকেই যেনো চিনতে পারছি না,মনে হচ্ছে আমি কে? ঈশা আলবাল বকে যাচ্ছে আর আমি খাটে কবল্যার মত বসে ফ্যাল ফ্যাল করে বাচ্চাটার দিকে চেয়ে আছি।

আমার যতদূর মনে পড়ছে ফেসবুক কদিন শুধু কথা বলেছিলাম ঈশা এর সাথে।রোজ ডিস্টার্ব করতাম বলে ব্লক করে দিয়েছিল।ঈশা কাছে bio-chemistry এর পরীক্ষা টা দিলাম কবে।ফেসবুক memes পরেছি চুমু খেলে প্রেগন্যান্ট হয় বলে মেয়েরা কিস করতে দেয় না।তোমার বাড়িতে আমি সব ম্যানেজ করে নিয়েছি।ভয় পাওয়ার কিছু নেই। ওনারা তো খুব খুশি। 

দাড়াও বাবা কে ফোন করে জানিয়ে দিই।” ” হ্যালো বাবা,আমি পৌঁছে গেছি, না না কোনো অসুবিধে হয়নি।নিন আপনার ছেলের সাথে কথা বলুন।ফোন টা দিল ঈশা।কি রে ব্যাটা,বিরাট কাজ করেছিস তো।সুন্দরী বৌমা সঙ্গে আবার একটা নাতি, তলে তলে এতকিছু করেছিস।যাই হোক ভালো করেছিস আমার খরচ বাঁচিয়ে, এখনকার একটা বিয়ে দেওয়া মানে লাখ টাকার ধাক্কা। শোন বৌমা কে বকা বকি করিস না যেনো আমাদের সব বলে দিয়েছে বলে 

ফোনে গলাটা আমার বাবার হতে পারে কিন্তু কথা গুলো কি করে বাবার হয়? ঈশা খেলছে বাচ্চাটার সাথে,” বাবু ওই দেখ বাবা“..আর বাচ্ছা টা আমার কাচু মাচু মুখের দিকে তাকিয়ে খিল খিল করে হাসছে ।সত্যি আমাকে দেখে বাচ্চাটারও খিল্লিবাজ মনে হয়। বাচ্চাটার দিকে এক দৃষ্টে তাকিয়ে আছি।

এটা আমার সন্তান?আমার মত দেখতে হয়েছে?এত সুন্দর বাচ্চাটা আমার?বুঝতে পারছি না কিছু।এটাও তো হতে পারে ঈশা বর ওকে তাড়িয়ে দিয়েছে ,আর আমার ফ্যামিলি কাছে নাটকটা সাজিয়েছে।এই সব আল বাল ভাবছি হটাৎ একটা বোমা ফাটার আওয়াজ। বোমার শব্দে ঘুমটা ভেঙে গেলো।মহালয়ার প্রথম বম টা বোধ হয় আমার ঘুম টাই ভাঙ্গলো প্রথম। 

ভোরের স্বপ্ন নাকি সত্যি হয় বলে তো অনেকে,কিন্তু আমার টা?মনে হলো হোক না সত্যি, বেস তো হয়। অভ্যেস মত ফোন টা নিয়ে ফেসবুক টা খুললাম।একটা notification ঢুকেছে।“Eshani Halder accept your friend request” চ্যাট বক্সে ঢুকে good morning লিখতে যাব,মনে হলো না থাক,চ্যাট করলে যদি প্রেগন্যান্ট হয়ে যায়।।

ফেসবুক মন্তব্য

Published by Story And Article

Word Finder

Leave a Reply

%d bloggers like this: