তার পরে বাই কি রৈয়াছে – মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ

পথের পাশে সালসা। পদ্মগুলঞ্চ,এলো ইন্ডিকা,চিরতা,নাক্স,ওলট কম্বল।
বাচ্চু আর আক্কু।কেবল মাত্র খঞ্জরী,আর ঝুনঝুনি।
অভূতপূর্ব ছন্দ।অভূতপূর্ব কবিতার ছন্দারোপ।
তার পরে বাই কী রৈয়াছে——-ইসবগুলের ভুষি আছে।
তার পরে বাই কী রৈয়াছে——চিরতার পাতা আছে।——
-এই সালসা খাইলে পরে পেটের অসুখ থাকেনা।
জুড়ি  দুটো অন্ধ বাচ্চা।উপরের দিকে মুখ করে যথাসাধ্য চিৎকার করে ছন্দময় করে তুলছে।
মাথার ওপর নিদয়া  আকাশ,আর বাচ্চা দুটোর ওপর নাযেল হওয়া গজবী টেম্পারেচার।
শতমুলীর মাহাত্য তুলে ধরতেই জনৈকের বাড়তি আগ্রহ দেখা দিলো।
একগ্লাস গিলে নিলো এক নিঃশ্বাসে।
আজ বৃহষ্পতিবার।শুক্র -শনি। রবিবার অফিস।বিয়ের সময় পেরুলো তিন মাস।
বাচ্চুর এখানে সে নিয়মিত কাস্টমার।
কি লৈলাইন বাবির লিগা?
তিন বিচিওলা বার্মিজ বাদাম, আর টক জিলাপি। হের বিরাট পছন্দের।
আর কি নিছুইন?কুনু খবর টবর নাই?
না—হ।
বাঁশি,লাঠি অলারা হুটহাট এলো,। ধমাধম ভাংচুর।তারপর সব ফাঁকা।ঘণ্টা বড়জোর  একদিন আইন মিয়ার লাঠি বাঁশি।দুসপ্তাহ বাচ্চুরা নেই।আবার শুরু।শতমুলীর কাস্টমার দুই বৃহষ্পতিবার ঘুরে গেছে।সুখবর আর মুক্তাগাছা র মন্ডা ছিলো হাতে।
নতুন ভাবে বাচ্চুরা সব শুরু করে—
তার পরে বাই কি রৈয়াছে, ডুলাবাইগন পাতা আছে
তার পরে বাই কি রৈয়াছে,আম্লি শাকের রস আছে
জুড়িরা উত্তর  দেয়—-
ডুলাবাইগন আম্লি খাইলে আমাশয় থাকেনা।
পত্রিকাওয়ালা রা সকাল থেকেই সরব। বিশেষ একটা খবরে পুরো ব্রীজের পাড় চাউর। জেবিন গার্মেন্টস এর শ্রমিক মালিক পক্ষের দ্বান্দিক বিষয়আশয়। কারন তো আছেই।কিন্তু ওটা জানার চেয়ে এখন শরবতি কোরাস গানটাই জরুরি মনে হল।
সামনে দিয়ে,আহত,অর্ধাহত,নিহতের লাশ নিয়ে ছুটছে এম্বুলেন্স, মাইক্রো, ভ্যান।বাচ্চুর কাছে খবর এলো একজনের জন্য ইমার্জেন্সি রক্ত দরকার।
শরবতের গান থামিয়ে বাচ্চুরা ছুটলো হাসপাতালে।

Published by Story And Article

Word Finder

Leave a Reply

%d bloggers like this: