বদমাইশ – অভিষেক সাহা

 ” আর পারা গেল না। দেশটা পুরো অসৎ লোকে ভরে গেল !” একরাশ বিরক্তি প্রকাশ করে বলল কমলেশ।

” কেনও গো কী হল! “পাশে বসা ওর স্ত্রী রুমা জানতে চাইল।

” আগে ভাই ভাইকে ঠকাতো, লোকে  পাড়া-প্রতিবেশিকে ঠকাতো, অচেনা লোককে  ঠকাতো। এখন তো যে উপকার করে তাকেও রেয়াত করছে না গো। এইভাবে চলতে থাকলে দেশ তো রসাতলে যাবে!” কমলেশ আশঙ্কা প্রকাশ করল।

” আবার কে কাকে ঠকালো। চারিদিকে এত চিটফান্ডের খবর শুনি যে ঠকানোর কথা শুনলে বুকের ভেতর কারেন্ট লাগে !” রুমা ভয় মেশানো গলায় বলল।

” আরে এভাবে চললে পাপ লাগবে পাপ , মহাপাপ।” গলা চড়িয়ে বলল কমলেশ। 

” তোমার কোনও ক্ষতি হয়নি তো!” কাঁপা গলায় বলল রুমা।

” আমার ক্ষতি তো যা হওয়ার হয়েছে। আমি তো ভাবছি এরপর দেশের কী হবে! মানুষ তো এরপর নিজের শ্বাসকেও বিশ্বাস করবে না ।” কমলেশ অস্থির হয়ে উঠল।

” কী ক্ষতি হয়েছে গো ?” নিচু গলায় জিজ্ঞেস করল রুমা । 

 “দু’টো ছেলে অনেকদিন ধরেই   আমার অফিসে ঘুরঘুর করছিল লোন পাসের ব্যাপারে । শুধু আমার অটোগ্রাফের জন্য আটকে ছিল। আমি  ওদের বললাম, তোমরা লোন নিয়ে ব্যবসা করবে, অনেক অনেক লাভ করবে, তখন তো আমার কথা মনেই থাকবে না! তাই এখনি যদি মিষ্টি খাওয়ার জন্য হাজার দশেক দাও তবে কাজটা তাড়াতাড়ি হবে। আরে বাবা, আমি তো একা মিষ্টি খাব না, আরও তো অনেক পিঁপড়ে আছে, তাই …. ।” কমলেশ কথা শেষ করার আগেই ওকে থামিয়ে রুমা বলল ” ওরা কি টাকা দেয়নি !”

সজোরে ঘাড় নাড়িয়ে,  টাকা ভর্তি খামটা  রুমার দিকে এগিয়ে দিয়ে  কমলেশ বলল ” টাকা দিয়েছে, পুরো টাকাই দিয়েছে , আমারও সাদা মনে কাদা নেই চেক না করেই খামটা নিয়েছি,  কিন্তু এখন দেখছি ছেলে দু’টো এত বদমাইশ,  পাঁচশ টাকার নতুন নোটের সঙ্গে  চারটে   পুরোনো নোট  ঢুকিয়ে দিয়েছে !”

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top