মুন্নির স্বগতোক্তি : বিপত্তারণ মিশ্র

আমার বাবা মা’র মধ্যে ভাব নেই —

ওরা ভালোবাসে না কেউ কাউকে!  

মা মাঝে মাঝে এক আন্টির নাম নিয়ে 

ঝগড়া করে বাবার সঙ্গে। 

বাবা আবার এক কাকুর নামে রেগে যায়। 

ওরা ভাবে ছোট্ট মুন্নি কিছু বোঝে না, 

আমি কিন্তু অনেক সিক্রেট জানি — 

আমার বেস্ট ফ্রেন্ডকে একদিন 

বলেওছি এইসব।

সে ও আমায় সব বলে। 

এরকম হ’তে হ’তেই তো 

ঋতুর বাবা মা আলাদা হয়ে গেল! 

ঋতু বাবার কাছে থাকে, মা কে পায় না —

কাঁদে।

আমার খুব কষ্ট হয়! 

তিন্নির বাবা মা’র খুব ভাব —

ওদের মধ্যে তিন্নিকে দেখলে 

আমার খুব লোভ হয়! 

মা-বাবার প্রেমের মিষ্টি রোদ্দুরে

তিন্নি যেন শীতের সকাল পোয়ায়! 

ওদের মাঝে যেন দুটো ডালকে জুড়ে, 

একগাছ গন্ধরাজের মতো 

খিল খিল করে হাসে সে! 

আমার অমন হাসতে মন হয়, পারি না — 

মনটা হাসি ভুলে কেঁদে ওঠে! 

আমার বাবা মা’র সম্পর্ক টা 

মনে হয় আর টিকবে না …..

আমি যেন আজকাল কেমন এক ভাঙনের গন্ধ পাই! 

একটা পোকা লাগা ম্রিয়মান ফসলের ক্ষেত —

একটা বিসর্জন এর বাজনা —

আমার স্বপ্নে শনৈঃ শনৈঃ এগিয়ে আসে! 

ওরা খুব স্বার্থপর! 

অন্তত আমার জন্য না হয় 

নিজেদের সুখ একটু ত্যাগ দিতো। 

আমার কথা ভেবে —

সম্পর্কে একটু সার- মাটি,একটু জল দিতো — 

যেমন আমরা একটা গাছ বাঁচাই। 

আমার এখন খুব ভয় হয়! 

একা থাকতে পারি না! 

মনে হয় — 

পৃথিবীর সব অন্ধকার কোনায় কোনায় 

ওৎ পেতে ভুত আছে আমার অপেক্ষায়! 

আমার যে দুজনকেই লাগবে! 

ঠাকুর আমার বাবা মা’র ভাব করে দাও ……

ওদের মধ্যে ভালোবাসার টান ই  আমার প্রাণ, 

আমার জীবন শক্তি, 

আমার বড়ো হওয়ার স্বপ্ন! 

হে ঠাকুর, প্লিজ …… প্লিজ, ওদেরকে এক করে দাও! 

না হলে আমি হয়তো বাঁচবো ঠিকই, 

কিন্তু ঘট ভাসান হয়ে যাওয়া ঠাকুর যেমন …. 

তেমন হয়ে যাবো….. কান্না লুকানো, করুণ, নিষ্প্রাণ!

Published by Story And Article

Word Finder

Leave a Reply

%d bloggers like this: