রবীন্দ্রনাথ – সত্যেন্দ্রনাথ পাইন

ওহে কবি রবীন্দ্রনাথ, লহ প্রণাম
তুমি এসেছিলে হেথা হঠাৎই ধনীর ঘরে
২৫শে বৈশাখের এক শুভলগ্নে।
তখন কি কেউ ভেবেছিল বিচিত্র বর্ণে
বিচিত্র রেখায় হবে তুমি অপরাজেয় এই
বাংলা সাহিত্য- অঙ্গনে, নব সংগীতের তারে
নব অভিযানে আপন তেজে আপন মহিমায়
দীপ্ত ভঙ্গিমায় নির্মল কোমল পল্লবে, গানে সুরে
এক অচ্ছেদ্য বন্ধনে?

ভাবেনি। আজ এই সভা মাঝেও
তোমার উদ্দেশ্যে শুনি কত না গুনগান
প্রত্যক্ষ করি বন্ধুত্বের পুষ্প সাজানো কত
বিচিত্রতায়। ধরতে গিয়ে ধরতে পারিনি যেগুলো বারেবারে অজস্রবার। তোমার
বহ্নি শিখায় আজ সব ম্লান। নীরব নিভৃতে
মিলনে গানে নানান কৌতুকের বীথিকায়।
তুমি ক্ষুরধার সম রচে গেলে অজস্র বিস্ময়
বিশ্বজুড়ে।
তুমি উদার জ্যোতির্ময় শ্রাবণে, বসন্তে,
বৈশাখের নিদারুণ কালবৈশাখীর ঝড়ে।
তুমি প্রাণময়, তুমি উপন্যাস, তুমি বেদ,
তুমি সাহসী, তুমি লক্ষ্যহীন না হয়েও ধ্যানগম্ভীর
কাননে কুসুমে সমাজে শিউলি- ঝরা শারদীয়ায়
সুখে দুখে কুহেলিকার মতো খেয়া পারাপারের
নব কুসুমবনে।
তুমি শুধু বিশ্বকবি নও। তুমি ঈশ্বর।
দিনে রাতে আসন্ন রাজনৈতিক পরাজয়ে
তুমি জোগাও সাহস অনুরাগে অপরূপ ব্যাখ্যায়
উপনিষদে, অভিনয়ে ছিলে অবিস্মরণীয়।
শাশ্বতবানীর শান্তিনিকেতনে
শিখি ভৈরবীর তান, চেনা শীর্ণ হিমবাহের
ভঙ্গিমায় জানতে পারি অপরূপ সরলতা
তুমি করবী, তুমি নও অবসান।
তুমি নও স্বেচ্ছাচারী। তুমি খুলে দিয়েছো
স্বর্গদ্বার– আবার এসো ফিরে এই বাংলায়
এই ঘণঘোর তমসায়।
এইটুকু প্রার্থনা জানাই।।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top