লকডাউনে মহাভোজ – গোপাল পাত্র

একটা প্রতীকী ছোট্ট গল্প

আপনি মধ্যবিত্ত ছা-পোষা সাধারণ
” ফ্যামিলি ” প্রিয় মানুষ – বিগত কুড়ি দিন ঘরে বসেই সরকারের নির্দেশ – বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ যথাযথভাবে পালন করেছেন… কিন্তু আজ যে ১লা বৈশাখ …
আজও  কি নিত্য দিনের মতো ডাল চচ্চড়ি ভাত ? 
   তাই সাতসকালেই আপনি গিন্নিকে বলে বাজারের থলে হাতে রয়না দিলেন বাজারে …
বাজারে গিয়ে দেখলেন শয়ে শয়ে লোক লকডাউন অগ্রাহ্য করে বাধা -নিষেধ না মেনে কেনাকাটায় ব্যস্ত …কারণ পহেলা বৈশাখ-নববর্ষ বলে কথা …

আপনিও তাই দশটা পাঁচটা দোকান ঘুরে মাছ- মাংস – দই- মিষ্টি শাক-সবজি কিছুই বাদ দিলেন না … যাকে বলে দুহাত খুলে হাট- বাজার করলেন
বাড়িতে ফিরে এলেন যথাযথ –

তারপর মহাভোজ ….সকলের মুখে হাসি ধরে না !

     গৃহিণী ও হাসি হাসি মুখ করে সকলকে পরিবেশন করতে লাগলেন -আপনার সাত বছরের ছোট্ট  মেয়েটি আপনার গলা জড়িয়ে ধরে একটা চুমুও দিলো …

     সদ্য মাধ্যমিক দেওয়া একমাত্র ছেলে বললো- বাবা ইউ আর গ্রেট …কত দিন যে এ সব খাইনি… কি যে ভালো লাগছে !
আপনি ও মনে মনে খুব সুখ পেলেন আনন্দ ও পেলেন !

এবারই গল্পের শুরু ….

     এরই মধ্যে আবার দিন পাঁচেক বিরতি দিয়ে সরকার আরো ২১ দিনের জন্য লকডাউন ঘোষণা করেছেন …

এদিকে সপ্তাহখানেক পর আপনার সর্দি সামান্য জ্বর জ্বর ভাব –

সময় খারাপ বুঝে আপনি ছুটলেন ফ্যামিলি ডাক্তার বাবুর কাছে !
ফ্যামিলি ডাক্তার বাবু ভালো বুঝলেন না… সামান্য কটা অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে আপনাকে সরকারি হসপিটালে যাওয়ার পরামর্শ দিলেন !

      পরের দিনই আপনার স্ত্রীকে সঙ্গে করে  গেলেন স্থানীয় মহকুমা হাসপাতালে… গিয়ে দেখলেন অসংখ্য মানুষের ভিড় …

কিন্তু করোনা পরীক্ষার কিট- প্রায় নেই বললেই চলে- অগত্যা তাঁরা আপনাকে ট্রানস্ফার করলেন এ-মআর বাঙ্গুর হসপিটাল …

অনেককে হাতে-পায়ে ধরে একটি গাড়ি ভাড়া করে আপনি উপস্থিত হলেন বাঙ্গুর হসপিটালে…
করোনার উপসর্গ থাকায় সেখানে  আপনাকে এডমিশান করে নেওয়া হলো !
     আপনার স্ত্রীকে ডাক্তার বাবুরা কিছু প্রশ্ন করে – বললেন রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত কিছু বিধি নিষেধ পালন করারও নির্দেশও দিলেন …

আপনার স্ত্রী বিষন্ন মনে বাড়ি ফিরলেন এ-কা- এ-কা …

ততক্ষণে গ্রাম্য পাড়া-প্রতিবেশীরা জেনে গেছে আপনার অসুস্থতার খবর …আপনার ছেলে মেয়ে দুটি ঘরে তালা বন্দী …সকাল থেকে খাবার জোটে নি তাদের !

পাড়া-প্রতিবেশী আপনার ঘর মুখো হয়নি কেউই… এমনকি নিজের দাদা ভাইয়েরা ও নয়… বন্ধুবান্ধব তো কোন ছাড়…

এতদিন আপনি যাদের সঙ্গে আড্ডা মেরেছেন-  রকে বসে গল্প করেছে
আত্মীয়তা বজায় রেখেছেন যথাসাধ্য !

সময় যে বড়ই অসহায় …

এই পরিস্থিতিতে  কেই বা জীবনের ঝুঁকি নিতে চায়?

দুদিন পরে আপনার রিপোর্টে  ” করোনা পজেটিভ” এসেছে তাই সরকারের পক্ষ থেকে আপনার ফ্যামিলির লোকজন- স্ত্রী ছেলে মেয়েকে এক জায়গায় স্থান সংকুলান না হওয়ায় বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করেছে ..
এই পর্যন্ত খবর আপনি শুনেছেন এক আত্মীয়ের কাছে … ব্যাস এই টুকুই-

আপনি শুধু বেডে শুয়ে শুয়ে দীর্ঘশ্বাস ফেলছেন আর মৃত্যুর দিন গুনতে গুনতে ঈশ্বরকে দোষারোপ করে কাঁদছেন আর বলছেন হাই ঈশ্বর কি করলেন আমাদের  ?

গল্পটা আর একটু বাকি …..

এদিকে আমাদের রাজ্য তৃতীয় স্তরে পৌঁছে গেছে অর্থাৎ কোথা থেকে করোনা ভাইরাসটি ছড়াচ্ছে তার উৎপত্তিস্থল খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না !     
     হাজার হাজার রুগী আসছে-যাচ্ছে মৃত্যু হচ্ছে অবিরত …কিন্তু আনন্দের বিষয় আপনি সুস্থ হয়ে উঠেছেন .. আগামীকালই আপনাকে ছুটি দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ডাক্তারবাবুরা !

যথারীতি সরকারের গাড়ি সরকারি লোক এসে আপনাকে বাড়ি পৌঁছে দিয়ে গেছে!
কিন্তু সামান্য জল টুকুও গড়িয়ে দেবার লোক জনের পাত্তা পাওয়া দায়…

ব্যাংক থেকে লোন নেওয়া আপনার স্বপ্নের বাড়িটা যেটার ই-এম-আই এখনো বাকি- হ্যাঁ সেই স্বপ্নের বাড়ী খাঁ-খাঁ করছে …

আত্মীয় পরিজন ছেলে-মেয়ে স্ত্রী কেউ নেই … আপনি একা- একা আর একা…

পড়ার সেই  কুকুর টা.. আপনার ছোট্ট মেয়েটি যাকে লালি বলে ডাকত – যে প্রতিদিন দুপুরে অটো- কাটা খেতে আসতো.. তার ও পাত্তা নেই…

চারিদিকে মৃত্যুর ছায়া …
কারা যেন  ওত – প্রোত ভাবে ঘুরে বেড়াচ্ছে আপনার চারিদিকে… !

নিজের মৃত্যু ভয়ে ভীত আপনি নন … ভয় পাচ্ছেন আপনার মেয়ে -ছেলে- স্ত্রী বাড়ি ফিরবে তো ?
এই চিন্তা দিনরাত আপনাকে পাগল করে তুলছে…. !

ফেসবুক মন্তব্য

Published by Story And Article

Word Finder

Leave a Reply

%d bloggers like this: