স্বর্ণরেণু তোমার পায়ে – দেবদাস কুণ্ডু

এক

এখন তুমি দাঁড়িয়ে আছো পাহাড়ের চূড়ায়

তোমার পায়ে সাফল্যের স্বর্ণরেণু

তোমার চোখে জ্বলছে গ্রহ নক্ষত্র তারা

তুমি হাত বাঁড়লে ছুঁতে পারো আকাশ

একবার যদি ভাবো, পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মানুষ আমি

মূহুর্তে চলে আসবে আয়লার মতো ঝড়

তুমি পড়ে যাবে মহাশূন্যে

ভূমিতে একটা মানুষ চোঁখ বুঁজে করছিল

বুদ্ধের ধ্যান, পড়ছিল অশোকের শিলালিপী

তার পায়ের কাছে পড়ে থাকবে তোমার 

রক্তাত শরীর। যতো গ্রহ তারা ছিল

তারা উঠে যাবে মহাকাশে। তুমি নি:স্ব প্রান।

                  দুই 

লোকটা হঠাৎ এসেছিল ঝড়ের মতো

খ্যান খ্যানে গলায়,বলল, ‘আমার’বড় খিদে 

পেয়েছে। খেতে দাও তাড়াতাড়ি।’ 

খেয়ে তৃপ্তিতে ঘুমিয়ে পড়লো লোকটা

দিন যায়, রাত যায়, বছরের পিঠে আসে বছর

লোকটা আর ঘুম থেকে উঠলো না। 

কি খেয়ে ছিল লোকটা?

বিষ না অমৃত?

                    তিন

আমি স্বর্গ দেখিনি, আমি দেখিনি নরক

আমি দেখেছি পৃথিবীর উওর আর দক্ষিন  মেরু

একদল মানুষ লোফালুফি খেলে হাতে নিয়ে স্বর্গ। আর  একদল মানুষ নরকে বসে গোনে

লাশ। শত শত লাশ। কখনো ভুল হয় গুনতে। 

নিজের লাশ নির্ভূল গুনতে  পারে কোনদিন? 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top