Abhisek Saha

# অণুগল্প — সামর্থ্য
# গল্পকার — অভিষেক সাহা

” কতটুকু সামর্থ্য আছে তোমার ? এই ফ্ল্যাটের বাইরের দুনিয়ায় একবার বেরিয়ে দেখ, বুঝবে একটা ভূট্টায় কতগুলো দানা থাকে !” বিরক্তি মেশানো গলায় কথাগুলো স্ত্রী আনাকে বলে তিনতলার ফ্ল্যাটের ব্যালকনিতে গিয়ে দাঁড়াল কেভিন।
” একটা ভূট্টায় কতগুলো দানা আছে তুমি আমার চেয়ে ভালো বলতে পারবে। কোভিডের জন্য দেড় বছর ধরে ওয়ার্ক ফ্রম হোম করে তোমার হাতে তো বিশেষ কাজ নেই, এখন এইসব করছ !” বেশ গম্ভীরভাবে বলল আনা।
” একদম বাজে কথা বলবে না। বাড়িতে থাকি মানে কোনো কাজ নেই !উল্টে অফিসের কাজ বেড়েছে। সংসারটা তো আমার টাকায় চলে। তোমার তো সে যোগ্যতা নেই!” ব্যালকনি থেকে ছুটে ঘরে এসে আনার সামনে দাঁড়িয়ে বলল কেভিন।
” প্রেম করে বিয়ে করার সময় মনে ছিল না। তখন তো কত মিষ্টি মিষ্টি কথা!” মুচকি হেসে বলল আনা।
” আমি কী একা প্রেম করেছি, তুমি করোনি? তখন কী করে বুঝব তুমি ঘর থেকেই বের হবে না। যেদিন কবরে চলে যাব সেদিন বুঝবে !” রাগ করে বলল কেভিন।
” আমি ফুল নিয়ে তোমার কবরের উপর রেখে তারপর সব লিস্ট করে বলব !” মজা ঢালা গলায় বলল আনা।
” কী বলবে ?” অবাক হয়ে জানতে চাইল কেভিন।
” আমার কী লাগবে, আমার শ্বশুর- শাশুড়ির কী লাগবে, আমাদের ছেলের কী লাগবে, তোমার শ্বশুর- শাশুড়ির কী লাগবে, সব ।” গলা চড়িয়ে বলল আনা।
” উফ্ , তুমি কী আমাকে মরার পড়েও শান্তি দেবে না! তোমার কী কোনো সামর্থ্যই নেই ?” বিস্মিত হয়ে জানতে চাইল কেভিন।
” আছে তো, আমার বিশাল সামর্থ্য আছে ।” হাসিহাসি মুখ করে বলল আনা।
” তোমার ? সামর্থ্য? কী আছে শুনি ?” গোলগোল চোখ করে জিজ্ঞেস করল কেভিন।
একগাল হেসে আনা বলল ” সবকিছুর পরেও তুমি যে আমাকে ভালোবাস, আমার কোন কিছুতেই তুমি না বলতে পার না, এটাই আমার সবচেয়ে বড় সামর্থ্য।”

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *