You are currently viewing Article

Article

সমাজের আয়নায় সমকালীন সমাজের ছবি ফুটে ওঠে,যা দিয়ে সমাজতাত্ত্বিকরা সমাজের গতি প্রকৃতি নির্ধারণ করেন, বিচার বিশ্লেষণ করেন, তার থেকে সামাজিক সমস্যা খুঁজে বেড়ান, তাকে আমরা sickness of society বলতে পারি। সমাজবদ্ধ মানুষের কার্যকলাপকে ঘিরেই সমাজের গতি-প্রকৃতি সমস্যা ইত্যাদি বেরিয়ে আসে,তাই বর্তমানে সমাজের সমস্যা নিরুপনে সমাজতাত্ত্বিক গন সাধারণ মানুষের চিন্তা চেতনা, ভাবনা কে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে থাকেন।

বর্তমানে ব্যস্ত গতিশীল জীবনেও মানুষ অলস সময় কাটানোর জন্য পাড়ার মোড়, রক,চায়ের দোকান,পানের দোকান ,ক্লাব বাসে ট্রেনে নানান আষাঢ়ে গল্প,কূটকেচালি,পাড়া,গ্ৰাম, দেশ বিদেশের বিভিন্ন সামাজিক অর্থনৈতিক রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে আলোচনায় মেতে ওঠেন, চলে তর্ক বিতর্ক, চুলচেরা বিচার বিশ্লেষণ, এক একজন যেন বিশেষজ্ঞ হয়ে ওঠে, তত্ত্ব প্রতিষ্ঠা করে তাত্ত্বিক হয়ে ওঠে উঠতে চায়, কেউ কেউ রসাস্বাদন করে তৃপ্তি লাভ করে, এভাবেই চলছে জীবন! সমাজের সমকালীন পরিস্থিতি সম্পর্কে সবাই যে ওয়াকিবহল এটা মোটামুটি পরিষ্কার! কিন্তু যেটা ঝাপসা আঁধারে ঘুরছে সেটা হলো চিকিৎসা! যাকে আমরা সমাজের শুদ্ধি করনের প্রচেষ্টা বলে থাকি!

এই সেদিন একটা সমীক্ষার কাজে গেছিলাম পূর্ব বর্ধমান জেলার পূর্বস্থলী ২ নম্বর ব্লকে! একটা গ্রামে এক দুপুর বেলায় শিব মন্দির প্রাঙ্গণের আটচালায় তুমুল তর্ক-বিতর্ক চলছে, বুঝলুম তর্কের বিষয় সমকালীন দুর্নীতি ! মন্দিরের ঠাকুর মশাই এবং সেবাইতের কাছে তথ্য সংগ্রহ করতে করতে সেইসব আলোচনার অনেক বিষয়াদি কর্ন কোঠরে ধাক্কা মারতে লাগলো, বুঝলাম সকললেই বিষয়গুলো সম্পর্কে অবগত, বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে সমাজের সমকালীন পরিস্থিতি বা চিন্তাভাবনা সবাই কমবেশি জানতে পারছে! কিন্তু সুনীতি বা দুর্নীতি যাই হোক সমস্ত সামাজিক ঘটনার জন্য যে সমাজ দায়ী, সমাজের নীরবতা দায়ী, এই বিষয়টি কিন্তু আলোচনার মধ্যে আসছে না! আর না আসাটাই সমাজের অসুস্থতা! এই বিষয়টি নিয়ে বুদ্ধিজীবী মহল বা সমাজ দার্শনিকদের একটু চিন্তাভাবনা করার সময় এসেছে।

আমি বেশ কয়েকটি আড্ডাস্থল ঘুরে দেখেছি, সমকালীন পরিস্থিতিতে সব মানুষেরচিন্তা-ভাবনা যে এলোমেলো তা নয়, কিছু কিছু চিন্তা-ভাবনা সমকালীন সমাজের প্রেক্ষাপটে থেকেই, এ থেকে সমস্যা সমাধানের পথ পাওয়া যেতে পারে, তাই কোন সামাজিক সমস্যা সমাধানে সাধারণ মানুষের আচার-আচরণ চিন্তা-চেতনার ওপরও গুরুত্ব দেয়া উচিত। বর্তমানে রাষ্ট্র ও সমাজ গঠনে, কল্যাণকারী ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে সমাজতাত্ত্বিক এবং রাজনৈতিক কর্তাব্যক্তিদের এই বিষয়টি নিয়ে চিন্তা ভাবনা অবশ্যই করা উচিত!

#সমাজের আয়নায় মুখ দেখে#

লেখক: বারিদ বরন গুপ্তসমাজ ও সংস্কৃতি বিষয়ক প্রবন্ধের লেখালেখিতে যুক্ত।

inbound5658356819818170812.png

Barid Baran Gupta

Leave a Reply