আগে তিতা পরে মিঠা – শম্পা সাহা

আগে তিতা পরে মিঠা শম্পা সাহা

 

 

অকারণ, অহেতুক,লোক দেখানো, জোড় করে গায়ে চাপানো কোনো বাদ ই ভালো নয়। না নারীবাদ, না পুরুষ বাদ। তাতে যে মানুষটাই বাদ হয়ে যায়। অকারণ জড়ায়ুর স্বাধীনতার ধুঁয়ো তুলে কখনো নিজের সামনের মানুষ টাকে ঠকাচ্ছি না তো, বা আইনি সুযোগে স্বামী, আমাকে মানসিক নির্যাতন করছে গান গেয়ে আর এক জন কে গুছিয়ে একঘরে করার ষড়যন্ত্র করছি না তো!

আমি নারী বিরোধী নই, কোনো বাদী বা বাঁদি কোনো টাই না, আমি মানুষ তাই বুঝি কষ্ট, যন্ত্রণা, বঞ্চনা নারী পুরুষ নির্বিশেষে সবার।

জড়ায়ু আপনার, সন্তান আপনি নাই চাইতে পারেন, সেটা কিন্তু প্রেমিককে আগেই বলে নেবেন, কারণ আপনি মা হতে চাইতে নাই পারেন, কিন্তু কারো বাবা হতে চাওয়ার আবেগ কেড়ে নেবার অধিকার আপনার নেই। তাই যা বলবেন, আগে ভাগে, খোলাখুলি, স্পষ্ট করে। না হলে পড়ে আঙুল তোলা, কাদা ছোড়াছুড়ি অবশ্যম্ভাবী।

আপনি ছেলের বাবা হবার শখ রাখতেই পারেন বা আপনার বাড়ির লোকওলোকও। তাই হবু স্ত্রী কে আগেই জানিয়ে দিন যে আপনি জীবনসঙ্গিনী নন, পুত্র উৎপাদনের যন্ত্র চান। বিয়ে মানে আপনার কাছে,”পুত্রার্থে ক্রিয়তে ভার্যা”।সেটাও কিন্তু আগেই বলে রাখুন। বিয়ের পর, “ছেলে চাই, ছেলে চাই” করে নিজেকে ছোট করবেন না।

সবটা জেনে, মেনে সম্পর্কই ভালো। না হলে পড়ে তিক্ততা ছাড়া কিছুই থাকবে না। আমার বাবা বলেন, “আগে তিতা, পড়ে মিঠা ই ভালো”।

Leave a Comment

Your email address will not be published.