অসময়ে এলে ! – আফসানা বেলী

হঠাৎ একদিন চোখে পড়ে গেলো, পুরোনো এক তলা সেই বিল্ডিং। ঠিক আগের মতোই আছে। হ্যাঁ ,ঠিক ১২ বছর আগের দেখা সেই বিল্ডিং,গাছ, খেলার মাঠ ,কক্ষ গুলো আগের আদলেই আছে। তবে ঘুনে ধরেছে দরজা আর জানালায়। গ্রিল এ জং পড়েছে। টং এর দোকানটাও আছে, সবই আছে ,শুধু পরিবর্তন হয়েছে মানুষের ।

আশ্চর্যজনক ব্যাপার হচ্ছে ১২ বছর পর স্মৃতিময় জায়গা টি তে পাশে পেয়েছিলাম শৈশবের সেই বন্ধু কে, যেখানে পাঁচটি বছর এক সাথে ছিলাম।দুজনের দেখা হয়ে গেলো স্মৃতি বিজড়িত শিশুকালের স্কুল টি তে।
সে আমাকে দেখেই অবাক! বলল ঠিক আগের মতোই আছো । কোমল, নিষ্পাপ, বাচ্চা বাচ্চা ভাব এখনো আছে তোমার চেহারায় । আমি মুচকি হেসে উত্তর দিলাম, তুমি কিন্তু আগের মত নেই । মোটা আর একটু লম্বা হয়ে গেছো। এ কথা শুনেই এক গাল হেসে বলে উঠলো আগে তো এমন ছিলে না, বেশ কথা শিখে গেছো।

এভাবে কথা বলতে বলতে সে আমাকে তার সাথে একটু কফি খাওয়ার প্রস্তাব রাখলো ।আমি বললাম বাসায় যেতে দেরি হয়ে যাবে,আজ না। সে বলল, ঠিক আছে আমি বাইক এনেছি তোমাকে বাসা পর্যন্ত নামিয়ে দেই ? আমি বলেছিলাম,আশপাশের অনেকেই পরিচিত কারো চোখে পড়লে বিষয় টা ভালো দেখা যাবে না। তারপর বলল তোমার ফোন নং, ফেসবুক একাউন্ট কিছু একটা দিবে কি? কথা বলতাম! আমি কিছু বলতে পারছিলাম না, গলা কেমন শুকিয়ে এলো। ভেতরে একটা অভিমান চলে আসলো।

বিদায় দেবার সময় সে নিঃসংকোচে বলেই ফেললো তোমাকে অনেক খুঁজেছি,হঠাৎ করেই হারিয়ে গেলে, কতটা ভালোবাসতাম বুঝাতে পারবো না । বিয়ে করে নিয়েছো কি?আমি চাপা হাসি দিয়ে বললাম, তোমার মেয়ে কেমন আছে ? বয়স কত হলো মেয়ের? অনেক আদর দিও আমার পক্ষ থেকে ।
সে চোখ নামিয়ে কৃত্রিম হাসি মুখে নিয়ে জবাব দিলো “ভালো”, ৭ বছর । রিক্সায় উঠে হাত নেড়ে বিদায় নিলাম, আমাকে যতদূর দেখা গেছে ততখন পর্যন্ত সেখানে দাঁড়িয়েই ছিলো ।

আমিও মানুষটিকে অনেক পছন্দ করতাম,
ভালো লাগত কিন্তু কখনো বলার সাহস হয়নি। বুঝতে বুঝতে এক যুগ পার হয়ে গেছে। আমিও প্রায়ই খুঁজেছি তাকে, কখনো সামনে পাইনি । অথচ তার থাকার জায়গা আর আমার থাকার জায়গার দূরত্ব মাত্র কয়েক মিনিটের । দুনিয়াটা বড় আজব। ভাগ্য মানুষকে কোথায় নিয়ে দাঁড় করাবে বুঝা বড় দায় । দুজন একই শহরে থেকেছি তবুও কখনো সামনে পাইনি ।এখন ও পাবো না।
ক্ষমতা থাকলে মুহূর্ত টা কে আটকে রাখার চেষ্টা করতাম। কিন্তু সে সাধ্য যে নেই।সময়ের কাছে বড়োই অসহায় আমরা ।

সারারাত ঘুম হলো না, কেমন যেনো কষ্ট হচ্ছে বুকের ভেতর টাতে। মনে মনে ভাবলাম কেনো অসময়ে এলে?

আশ্চর্যজনক ব্যাপার হচ্ছে ১২ বছর পর স্মৃতিময় জায়গা টি তে পাশে পেয়েছিলাম শৈশবের

ফেসবুক পেজ লিঙ্ক
https://www.facebook.com/storyandarticle/posts/174868787773764

Leave a Comment

Your email address will not be published.